৫ টি সহজ উপায়ে আপনার ওয়াইফাইয়ের স্পিড বাড়িয়ে নিন।

৫ টি সহজ উপায়ে ওয়াইফাইয়ের স্পিড বাড়ান

আপনার রাউটারের ওয়াইফাই স্পিড বাড়ান

আমরা অনেকেই ব্রডব্যান্ড কিংবা সিম নেটওয়ার্ক ব্যাবহার করে রাউটার দিয়ে ওয়াইফাই নেট ব্যাবহার করি। অনেক ক্ষেত্রে রাউটার সিগনাল থাকার সত্বেও নেট অনেক কম কাজ করে। মানে নেট স্লো হয়ে যায়। আজকের এই ৫ টি পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনার রাউটারের ওয়াইফাই স্পিড বাড়াতে পারেন।

১। রাউটার সঠিক স্থানে স্থাপন করুনঃ

আপনার রাউটার যদি সঠিক স্থানে না থাকে তাহলে ওয়াইফাই সিগনাল ভালো পাবেন না। আর এর ফলে ইন্টারনেট স্পিড ও স্লো কাজ করবে। তাই রাউটারকে এমন স্থানে স্থাপন করুন যেখান থেকে আপনার মোবাইল বা কম্পিউটার ডিভাইসটি সরাসরি পজিশনে থাকে। তাছাড়াও রাউটারকে এমন জায়গায় স্থাপন করতে পারেন যেখানে থেকে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে আপনার ডিভাইসে সিগনাল পেতে পারে। রাউটারকে কখনোই দেয়াল কিংবা কাচের আড়লে রাখবেন না৷ কারন এতে সিগন্যাল বাধাপ্রাপ্ত হয়। অনেকেই আছে কাচের বাক্সের মধ্যে কিংবা কাঠের বাক্সের মধ্যে রাউটার রেখে দেয়। এটা ঠিক না।

৫ টি সহজ উপায়ে ওয়াইফাইয়ের স্পিড বাড়ান

২। রাউটারে উন্নত এন্টেনা লাগানোঃ

ওয়্যারলেস রাউটারে অনেক সময় এন্টেনার ত্রুটির কারনে সিগন্যাল বিঘ্ন হয়। রাউটারে তাই সবসময় ভালো ও উন্নতমানের এন্টেনা লাগানোই বেটার। তাছাড়াও রাউটারের এন্টেনার দিকের কারনেও সিগন্যাল কম পেতে পারেন৷ আপনার ডিভাইসের দিতে মুখ করে কিংবা খোলা জায়গার দিখে মুখ করে এন্টেনা স্থাপন বা পজিশন করে দিবেন। তাহলে সিগন্যালের ঘাটতি কিংবা বিঘ্ন হবেনা।

৩। রিপিটার স্থাপনঃ

বড় কোনো বাসা কিংবা অফিসে একটা রাউটার দিয়ে কাভার করা যায়না। তাই পুরো অফিস কিংবা বাসা ওয়াইফাই দিয়ে কাভার করার জন্য রিপিটার ব্যবহার করতে পারেন কিংবা নতুন রাইটার ব্যাবহার করে ইন্টারনেটকে বর্ধিত করতে পারেন।

৪। ডিভাইসের ব্যাকগ্রাউন্ড ডেটা বন্ধ করাঃ

ইলেক্ট্রনিক প্রতিটা ডিভাইসেরই ব্যাকগ্রাউন্ড ডেটার প্রয়োজন হয়। এই ডেটা ডিভাইসকে আপডেট রাখতে ব্যবহার করা হয়। আপনি চাইলে এই ডেটা ব্যবহার বন্ধ করতে পারেন। এটা বন্ধ করা হলে আপনিও কিছুটা ডেটা লস থেকে মুক্তি পাবেন এবং ইন্টারনেটের ভালো স্পিড ও পাবেন। তাছাড়াও অতিরিক্ত কোনো ট্যাব চালু থাকলেও ডেটা বেশি খরচ হয় এবং নেট স্লো হয়ে পরে। তাই অপ্রয়োজনে অতিরিক্ত ট্যাব ওপেন করে না রাখাই ভালো।

৫৷ রাউটার রিস্টোর বা পুনরায় সেটাপ দেয়াঃ

প্রতিদিন নেট ব্যবহার করার ফলে রাইটার কিছু ক্যাস ডাটা জমা রাখে। সেই ক্যাস গুলো ডিলিট করার জন্য রাইটারকে রিস্টোর দেয়ার প্রয়োজন হয়। মাসে ২ বার রাউটার রিস্টোর বা পুনরায় সেটাপ দিয়ে নিলে ভালো হয়। এতে সিকিউরিটিরও সমস্যা সমাধান হয়ে যায়। তাছাড়া যখন নেট স্লো হয়ে যায় রাউটারকে একবার বন্ধ করে আবার চালু করলে পুনরায় আবার আগের স্পিড ফিরে পাওয়া যায়।

আরো দেখুনঃ উইন্ডোজের একটা সেটিং বন্ধ করেই ২০% ইন্টারনেটের স্পিড বাড়িয়ে নিন।

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *