মোবাইল ফোন গরম হবার প্রধান ৬ টি কারন ও সমাধান

মোবাইল গরম হওয়ার কারণ

ডিজিটাল বাংলাদেশে বলতে গেলে সবাই মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। গত এক দশক আগেও এত বেশি ব্যবহারকারী ছিলো না। মোবাইল ফোন অপারেটর গুলোর হিসাবে বর্তমানে দেশে মোট ৪ কোটি ৯০ লাখ মোবাইল ফোন ব্যাবহারকারী রয়েছে। আবার বিটিআরসির হিসাব অনুযায়ী (জুন ২০১৫) ১২ কোটি ৬৮ লাখ। কিন্তু প্রকৃত ব্যাবহারকারী যে কত তার হিসাব এখনো ঠিকমত কেউ দিতে পারে নাই। যাই হোক হিসাবের কথা নিয়ে আর কিছু বলছি না, আমি মোবাইল গরম হবার কারন নিয়ে বলি।
আপনার পছন্দের স্মার্টফোনটি গরম হবার কারন মুলত ছয়টি। আমি আজ এই ছয়টি কারন নিয়ে আপনাদের কাছে বর্ননা করছি সাথে এর সমাধানও দিয়ে দিচ্ছি। যাতে করে আপনার পছন্দের ফোনটিকে কিছুটা হলেও সুরক্ষিত রাখতে পারেন।

প্রোসেসর :

প্রতিটি মোবাইল ফোনের সকল কার্যাদি প্রোসেসর করে থাকে। প্রোসেসরকে সেন্ট্রাল প্রোসেসিং ইউনিট ও বলতে পারেন। আপনার ফোনটি গরম হবার অন্যতম কারন হতে পারে এই প্রোসেসরের জন্য। যেহুতু প্রোসেসর সকল কার্যাদি করে থাকে সেহুতু এটি গরম হবেই।
এর সমাধন বলতে আপনাকে ফোন চুজ করতে হবে ভালো প্রোসেসর যুক্ত ফোন। ভালো প্রোসেসর বলতে অক্টাকোর বা কোয়াডকোর প্রোসেসর। বর্তমানে বাজারে প্রায় সব স্মার্টফোনগুলোই কোয়াডকোর বা অক্টাকোর। এখন বলতে পারেন আমার ফোনটাও তো কোয়াডকোর বা অক্টাকোর প্রোসেসর, তাহলে এটা কি জন্যে গরম হয়? আপনার প্রশ্নের উত্তর হলো প্রোসেসর ঠিক তার মতই কাজ করবে গরম হবার হয়তো অন্য কারনগুলো দায়ী।

ব্যাটারি :

বর্তমানে যে হারে মোবাইল ফোনগুলা চিকন করতেছে তাতে মনেহচ্ছে মোবাইল কোম্পানিগুলোর টাকা কম পড়েছে। মোবাইল চিকন হবার কারনে ব্যাটারিও চিকন হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু চিকন ব্যাটারির ধারন ক্ষমতাও তো চিকন হয়ে যাচ্ছে মানে কম হয়ে যাচ্ছে। স্মার্টফোনগুলো ডেভলপ করলেও কিন্তু ব্যাটারি গুলো ডেভলপ করা হচ্ছেনা। কম ধারন ক্ষমতা সম্পন্ন ব্যাটারি যখন অধিক ধারন ক্ষমতা সম্পন্ন ফোনকে শক্তি সাপ্লাই করতে পারেনা তখনি ব্যাটারি গরম হয়ে যায় আর ব্যাটারির গরমে চিকন মোবাইলটিও গরম হয়ে যায়। কারন চিকন মোবাইলে তাপ তারাতারি ছড়িয়ে পড়ে।
তাছাড়াও মোবাইলের অরিজিনাল ব্যাটারি না থাকলে ব্যাটারি গরম হবার কারনে আপনার স্মার্টফোনটিও গরম হয়।

নেটওয়ার্ক সিগনাল :

মোবাইলফোন অপারেটর গুলো যদি কম সিগনাল বা নেটওয়ার্ক কম দেয় তাহলেও মোবাইল গরম হয়। এটিও স্মার্টফোন গরম হবার আরো একটি অন্যতম কারন। কারন স্মার্টফোন মানেই তো নেটওয়ার্ক আর নেটওয়ার্ক না থাকলে ইন্টারনেট চালানো যাবেনা কথাও বলা যাবেনা। দুর্বল নেটওয়ার্ক সিগনাল থাকলে ফোন তখন সিম অপারেটর গুলোর কাছে অধিক রিকুয়েস্ট পাঠায়, আর অধিক রিকুয়েস্টের কারনে ফোন গরম হয়।
সমাধান আছে এর, নেটওয়ার্ক সার্সিং অপশন মেনুয়ালি না করে অটোমেটিক করে রাখবেন। কারন যেখানে দুর্বল নেটওয়ার্ক পাবে সেখানে নেটওয়ার্ক ভালো পাবার জন্য সে মেনুয়ালি সার্চ করবে। মেনুয়ালি সার্চ বলতে সিম অপারেটরকে অধিক রিকুয়েস্ট পাঠাবে। অটোমেটিক রাখলে কম বা বেশি নেটওয়ার্কেও আর সার্চ করবেনা।
ইন্টারনেট গতি স্লো থাকলে ইন্টারনেট না চালানোটাই ভালো হবে। কম গতির ইন্টারনেটের কারনে মোবাইল ফোন গরম হয় তাই ইন্টারনেট ব্রাউজিং করতে হলে ৩ জি বা ৪ জি ডাটা কিনে ব্যাবহার করবেন।

অনেক্ষন ধরে ফোন চালানো :

অনেক সময় ধরে ফোন চালালে ফোন গরম হয়। এটাও একটা অন্যতম কারন ফোন গরম হবার জন্য। অধিক সময় ধরে ফোন চালালে প্রোসেসর বেশি কাজ করে আর প্রোসেসর বেশি কাজ করলেই ফোন গরম হবেই। তাই ফোন কম বা অধিক সময় ধরে ব্যবহার করবেন কি না এটার সমাধার আপনার নিজের কাছেই।

চার্জ অবস্থায় চালানো :

চার্জ অবস্থায় ফোন চালালে ফোন গরম হয়। কারন প্রথমত এক্ষেত্রে আপনি প্রোসেসরকে বেশি কাজের জন্য কমান্ড দিচ্ছেন, দ্বিতীয়ত ব্যাটারির কাছ থেকে শক্তি নিচ্ছেন। এই দুটো কাজের সংমিশ্রনে জন্যও ফোন গরম হয়। তাই এটারও সমাধান আপনার কাছেই। চার্জ অবস্থায় ফোন ব্যবহার করবে নাকি ব্যাবহার করা থেকে বিরত থাকবেন। যদি ফোনটা খুব পছন্দের হয় তাহলে মনেহয় আর চার্জ অবস্থায় ব্যাবহার করবেন না। সাবধান! চার্জ অবস্থায় পছন্দের ফোনটি ব্যাবহারের কারনে বিস্ফোরনও হতে পারে।

অ্যাপ :

অপ্রয়োজনীয় অ্যাপের কারনেও ফোন গরম হয়। কারন এগুলো ব্যাকগ্রাউন্ডে নিজেদের কাজ চালিয়ে নেয় এবং প্রোসেসরকে কাজের জন্য কমান্ড করে। তাছাড়া Ram স্পেস ধরে রাখে।
বিনা কারনে অ্যাপ চালু রাখলেও ফোন গরম হয়। তাছাড়া অ্যাপ্লিকেশন আপডেট না রাখলে গরম হয়।
সমাধান, অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ আনইনস্টল করুন। কাজ শেষ হলে অ্যাপ থেকে বের হয়ে আসুন বা বন্ধ করুন। আর সবসময় অ্যপগুলো আপডেট রাখুন।

তাহলে প্রথম থেকে বিষয় গুলো আর একবার রিভিউ করা যাক। মোবাইল ফোন গরম হয় মুলত ছয়টি কারনে। কারনগুলো হলো।
১। প্রোসেসরের কার্যক্ষমতার কারনে
২। ব্যাটারির কারনে
৩। দুর্বল নেটওয়ার্ক সিগনালের কারনে
৪। অধিক সময় নিয়ে ফোন চালালে
৫। চার্জ অবস্থায় ফোন চালালে
৬। অ্যাপের বিভিন্ন কারনে

Add a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *